স্টাফ রিপোর্টারঃ
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের সংযোগ সড়ক (আঞ্চলিক রোড) মির্জাপুর উপজেলা সদরের দেওহাটা- পুষ্টকামুরী চরপাড়া পর্যন্ত ৩ দশমিক ৭০০ কি. মি. রাস্তা উন্নয়নের কাজ সমাপ্তির পথে। সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধিনে প্রায় ২৩ কোটি টাকা ব্যায়ে ৯৪ দশমিক ৪৩ মিটার একটি পাকা ব্রিজ, রাস্তা প্রশস্ত করন, ফুটপাত নির্মান, গাইড ওয়াল নির্মান এবং ড্রেন নির্মানের (৭০-৭৫) ভাগ কাজ প্রায় শেষ হয়েছে বলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় সহকারী প্রকৌশলী মো. কবির হোসেন জানিয়েছেন। আগামী এক মাসের মধ্যে পুরো কাজ শেষ করা হবে বলে তারা আশা করছেন। আজ বৃহস্পতিবার সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে দ্রুত এগিয়ে চলছে রাস্তা উন্নয়নের নির্মান কাজ।
সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ বিভাগীয় (মির্জাপুর) অফিস সুত্র জানায়, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের সংযোগ সড়ক (আঞ্চলিক রোড) দেওহাটা- পুষ্টকামুরী চরপাড়া পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্ত করন, ফুটপাত নির্মান, ড্রেন নির্মান ও রাস্তার দুই পাশে গাইড ওয়াল নির্মানের জন্য (২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে) প্রায় ১০ কোটি টাকা টেন্ডার (দরপত্র) আহবান করা হয়। কাজ পেয়েছেন ঢাকার মাহফুজ খান কন্সট্রাকশন লি.। অপর দিকে একই অর্থ বছরে এই রোডের মির্জাপুর সরকারী কলেজ সংলগ্ন প্রায় ১৩ কোটি টাকা ব্যায়ে ৯৪ দশমিক ৪৩ মিটার নতুন ব্রিজ নির্মানের কাজ পান এম এম বিল্ডার্স লি., ও টি বি এল লি. ও কোহিনুর এন্টার প্রাইজ নামে তিনটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ মো. একাব্বর হোসেন এমপির নির্দেশনায় সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ বিভাগীয় (মির্জাপুর) অফিসের কর্মকর্তাদের তত্তাবধানে ২০১৯ সালের জুন-জুলাইতে কাজ শুরু হয়।
এ ব্যাপারে ব্রিজ ও রাস্তা নির্মানের জন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মাসুদ পারভেজ ও মনোজের সঙ্গে বিস্তারিত জানার জন্য যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন, কাজ শুরুর পর থেকে দ্রুত এগিয়ে চলেছে। পুষ্টকামুরী চরপাড়া থেকে দেওহাটা পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্ত করনের জন্য দুই পাশের গাছ কাটা, মাটি ভরাট, রাস্তা সলিং, গাইড ওয়াল নির্মান ও ড্রেন নির্মানের (৭০-৭৫) ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। এছাড়া ৯৪ দশমিক ৪৩ মিটার পাকা ব্রিজ নির্মানের কাজও ৯০ ভাগ শেষ করা হয়েছে। আগামী এক মাসের মধ্যে এ রোডের পুরো কাজ শেষ করে সড়ক ও জনপথ বিভাগের কাজ রাস্তা বুঝিয়ে দেওয়া হবে বলে আশা করছেন।
এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ বিভাগীয় (মির্জাপুর) অফিসের উপ বিভাগীয় সহকারী প্রকৌশলী মো. কবির হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ মো. একাব্বর হোসেন এমপি মহোদয়ের বাড়ি এখানে। তিনি নিয়মিত সকল কাজের মনিটরিং করছেন। এখানে কাজে ফাঁকি দেওয়ার কোন সুযোগ নেই। কাজের গুনগত মানও ভাল হচ্ছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই কাজ সমাপ্তি হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here