ad cb under

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল ॥
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ৬০ কি. মি. এলাকায় ৭ টি চেকপোষ্ট বসানো হয়েছে। এসব চেকপোষ্টে আইন-শঙ্খলা বাহিনীর পাঁচ শতাধিক পুলিশ সদস্য নিয়মিত কাজ করায় মহাসড়কে নেই জনসাগম এবং নেই কোন যানজট। হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি মল্লিক ফখরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। অতিরিক্ত আইজপির সঙ্গে ছিলেন হাইওয়ে পুলিশের এসপি (এডমিন এন্ড প্লানিং হেডকোয়ার্টারস) মো. বরকত উল্লাহ খান, গাজীপুর রিজিওন হাইওয়ে পুলিশের এসপি মো. আলী আহাম্মেদ খান, গাজীপুর হাইওয়ে পুলিশের এডিশনাল এসপি মো. মনোয়ার হোসেন, সহকারী পুলিশ সুপার সাভার হাইওয়ে সার্কেল মো. জাহিদুল ইসলাম, মির্জাপুর থানা হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান মনিরসহ হাইওয়ে পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।
মহাসড়কের বিভিন্ন স্থান পরিদর্শনের পর হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি মল্লিক ফখরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, মহাসড়কে চেকপোষ্ট বসিয়ে প্রতিটি গাডীতে তল্লাসী করা হচ্ছে। যে যেখানে আছেন কেউ স্থান ত্যাগ করবেন না। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ঢাকার বাইরে কাউকে যেতে দেওয়া হবে না এবং ঢাকায় কাউকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। যারা সরকারের আইন অমান্য তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।
আজ শুক্রবার মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সায়েদুর রহমান বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমনের কারনে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে জনস্্েরাত ঠেকাতে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন আইন-শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী। টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন ও মির্জাপুর উপজেলা প্রশাসন নানা পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবদুর মালেক ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) মো. জুবায়ের হোসেন তদারকি করছেন। জনস্্েরাত ঠেকাতে মহাসড়কের চন্দ্র থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত ৬০ কি. মি. এলাকায় চন্দ্রা, মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ, ধেরুয়া, মির্জাপুর বাইপাস, টাঙ্গাইল বাইপাস, এলেঙ্গা ও বঙ্গবন্ধুর সেতুর পুর্বপ্রান্তে এই সাতটি পয়েন্টে চেকপোষ্ট (চকি) বসিয়ে যানবাহন তল্লাসি করে বৈধ কাগজপত্র দেখেছেন। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া অধিকাংশ যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। ঈদ উৎসব পালন করার জন্য অনেকেই কষ্ট আর দুর্ভোগ মাথায় নিয়ে নিজ নিজ গন্তব্যে পায়ে হেঁটেই ছুটে চলেছেন। ট্রাফিক পরিদর্শক মো. মোস্তাক আহমেদ বলেন, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজি) ড. বেনজীর আহমেদ ও হাইওয়ে পুলিশের আইজিপির নির্দেশনায় কঠোর অবস্থান নিয়েছেন পুলিশ বাহিনী। দেশে করোনা ভাইরাস মহামারী ঠেকাতে যে কোন উপায়ে জনসমাগম বন্দের কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন। ট্রাফিক পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ, থানা পুলিশ, জেলা পুলিশ ও র‌্যাব বাহিনীর সদস্যগন জনসমাগম ঠেকাতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন।
এদিকে মহাসড়কের গোড়াই, হাটুভাঙ্গা, দেওহাটা, মির্জাপুর বাইপাস, পুষ্টকামুরী চরপাড়া, পাকুল্যা ও নাটিয়াপাড়া এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সামাজিক দুরত্ব বজায় না মেনেই লোকজন রিকসা, ভ্যান, ঠেলাগাড়ি, অটোসহ বিভিন্ন ছোট ছোট যানবাহনে ভেঙ্গে ভেঙ্গে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গন্তেব্যে ছুটে চলেছেন। অনেকেই পায়ে হেঁটেই বাড়ির পথে ছুটে চলেছেন।
এ ব্যাপারে গোড়াই হাইওয়ে থানার ওসি মো. মনিরুজ্জামান মনির বলেন, টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম এবং পুলিশ সুপার মি. সনজিত কুমার রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক সার্বক্ষনিক মনিটরিং করছেন। মহাসড়কে যানবাহন ঠেকাতে পুলিশ প্রশাসন দিনরাত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত তারা মহাসড়কে দায়িত্ব পালন করে যাবেন বলে জানিয়েছেন। পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগন নিয়মিত ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসত মনিটরিং ও পরিদর্শন করছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here