মির্জাপুরে মাসুদ-খোরশেদ প্যানেলে ৮ জন বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত

0
200
Loading...

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির নির্বাচন জমে উঠেছে।নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের স্ব-পক্ষে ও আওয়ামীলীগ সমর্থিত মাসুদ-খোরশেদ পুর্নাঙ্গ প্যানেল বিজয় হতে চলেছে বলে সাধারন ভোটারগন জানিয়েছেন।২৬টি পদের মধ্যে এই প্যানেল থেকে ৮ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হওয়ায় তাদের পুনাঙ্গ প্যানেল বিজয় এখন সময়ের ব্যাপার বলে বর্তমান সভাপতি মো. মাসুদুর রহমান জানিয়েছেন।অপর দিকে বিএনপি-জামাত-সমমনা দল সমর্থিত এমরান-লুৎফর পরিষদ থেকে কোন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হতে পারেননি।পুনাঙ্গ প্যানেল বিজয়ী হওয়ার ব্যাপারে তারাও খুবই আশাবাদী বলে জানিয়েছেন।২৬টি পদের মধ্যে এই প্যানেল থেকে ১৬টি পদে প্রার্থী দিয়ে তারা প্রতিদ্বন্ধিতায় নেমেছেন।আজ বৃহস্পতিবার মির্জাপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি ও নির্বাচন পরিচালনা কার্যকরী পরিষদ সুত্রে এ সব তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, মির্জাপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি একটি অরাজনৈতিক সংগঠন।সংগঠনটি রাজনৈতিক ভাবে প্রতিষ্ঠিত না হলেও এবছর নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক ব্যানার রুপ নিয়েছে।স্থানীয় নেত্রীবৃন্দ মাধ্যমিক সমিতির নির্বাচন নিয়ে সমিতির সদস্য ও নেতাদের বসে সমঝোতার মাধ্যমে একটি নতুন কমিটি গঠন করার নির্দেশ দিয়ে ছিলেন।কিন্ত একটি পক্ষ রাজি হলেও প্রতিপক্ষ রাজি না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত নির্বাচনের রুপ নেয়।একটি প্রভাবশালী মহলের ইন্দনে বিএনপি-জামাত-সমমনা সমর্থিত একটি প্যানেল দিয়ে নির্বাচনে দাঁড় করিয়ে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।নিয়ম অনুযায়ী আগামী ৪ অক্টোবর মির্জাপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির নির্বাচন।নির্বাচনকে ঘিরে প্রচার-প্রচারনা বেশ জমে উঠেছে।দুটি প্যানেলে প্রার্থীরা বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ঘুরে ভোটারদের দ্ধারে দ্ধারে গিয়ে দিচ্ছে নানা উন্নয়ন মুলক প্রতিশ্রুতি।প্রচরনায় মাসুদ-খোরশেদ পরিষদ ও এমরনা-লুৎফর পরিষদ কাজ করে যাচ্ছেন।তবে সাধারন মানুষ ও ক্ষমতাসীন দলের অধিকাংশ নেতাকর্মী মাসুদ-খোরশেদ পরিষদকে সমর্থন দেওয়ায় তারা বেশ এগিয়ে রয়েছেন বলে ভোটারগন জানিয়েছেন।
এদিকে এই নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের স্ব-পক্ষে ও আওয়ামীলীগ সমর্থিত মাসুদ-খোরশেদ পরিষদ।অপর দিকে বিএনপি-জামাত-সমমনা দল সমর্থিত এমরান-লুৎফর পরিষদ প্যানেল প্রতিদ্বন্ধিতায় অংশ নিয়েছেন।গত ১৩ সেপ্টেম্বর ছিল মনোয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন।মনোয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিনে সহ প্রচার সম্পাদক ও সহক্রীড়া সম্পাদক এই দুইটি পদে চার জনের মনোয়নপত্র বাতিল হয় এবং ৮টি পদে প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী না থাকায় মাসুদ-খোরশেদ পরিষদ থেকে ৮ জনই বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হন।মাসুদ-খোরশেদ পরিষদের বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিতরা হলেন সহ সাংগঠনিক সম্পাদক পদে মুহাম্মদ ফরিদ আহমেদ,প্রচার সম্পাদক পদে মো. ময়নাল হোসেন, সাহিত্য সম্পাদক পদে মো. আমজাদ হোসেন, সহ সাহিত্য সম্পাদক পদে মো. আজাহার আলী,ত্রান ও কল্যান সম্পাদক পদে মো. শাহীনুর রহমান, সহ ত্রান সম্পাদক পদে মো. আতাউর রহমান,মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা পদে ছালমা আক্তার ও সহ মহিলা সম্পাদিকা পদে রাবেয়া আক্তার।
এ ব্যাপারে আওয়ামীলীগ সমর্থিত মাসুদ-খোরশেদ পরিষদের সভাপতি প্রার্থী মো. মাসুদুর রহমান মাসুদ ও সাধারন সম্পাদক প্রার্থী মো. খোরশেদ আলম বলেন, সাধারন শিক্ষক-কর্মচারী ও সমিতির সার্বিক উন্নয়ন এবং মুক্তিযুদ্ধের স্ব-পক্ষে উপজেলার প্রতিটি মাধ্যমিক ও নি¤œ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মচারীদের সমর্থন নিয়ে নির্বাচনে আমরা প্রতিদ্বন্ধিতা করছি।আমাদের পরিষদ থেকে ৮ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।সবার সহযোগিতায় বাকী ১৬ পদে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয় হবেন বলে তারা আশা করছেন।
অপর দিকে বিএনপি-জামাত-সমমনা দল সমর্থিত এমরান-লুৎফর পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক প্রার্থী মো. সুলতান উদ্দিন বলেন,এটা নির্দলীয় নির্বাচন। নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপুর্ন ভাবে অনুষ্ঠিত হলে আমাদের প্যানেল বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হবে বলে আমার বিশ^াস।এই লক্ষ নিয়ে আমরা প্রতিটি এলাকায় কাজ করছি।

(Visited 236 times, 1 visits today)